fbpx

বাংলাদেশের প্রথম ভিডিও নিউজ পোর্টাল

রবিবার, ১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৯; ১লা পৌষ, ১৪২৬; ১৭ই রবিউস-সানি, ১৪৪১
হোম সংবাদ ২৪ ঘন্টা শরীরের বিনিময়ে মাছ!
শরীরের বিনিময়ে মাছ!

শরীরের বিনিময়ে মাছ!

97
0

কেনিয়ার পশ্চিমাঞ্চলের ভিক্টোরিয়া হ্রদের তীরবর্তী অঞ্চলের মানুষ অত্যন্ত গরিব। এখানে জেলে এবং নারী ক্রেতাদের মধ্যে অর্থের বিনিময়ে মাছ কেনাবেচা হয় খুবই কম। এখানে মাছের বিনিময়মূল্য নির্ধারণ হয় সেক্সের মাধ্যমে। নারীরা জেলেদের সঙ্গে সেক্স করে তার মাছের মূল্য পরিশোধ করেন।

এই রীতিকে বলা হয়ে থাকে ‘সেক্স ফর ফিশ’। স্থানীয় ভাষায় যাকে বলা হয় ‘জাবোয়া’।

সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে জেলারা সারিবদ্ধ ক্রেতাদের সঙ্গে দর-কষাকষি শুরু করেছেন। ক্রেতাদের অধিকাংশই নারী। যারা জেলেদের কাছ থেকে মাছ কিনে স্থানীয় বাজারে বিক্রি করে কিছুটা লাভের প্রত্যাশা করেন।

লুসি অধিয়াম্বো (৩৫) তার সর্বশেষ ক্রয়কৃত মাছ বাজারে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করছিলেন। পাঁচ সন্তানের জননী এবং বিধবা। তিনি জানান, এখানে নারীদের হাত-পা বাঁধা।

তিনি বলেন, ‘আমাকে বাধ্য হয়েই মাছ পেতে সেক্স করতে হয়। কারণ আমার অন্য উপায় নেই।’

লুসি জানান, প্রতি সপ্তাহে তাকে এক অথবা দুজন জেলের সঙ্গে রাত কাটাতে হয়। এতে তার এইডস হতে পারে, কিন্তু অন্য উপায় নেই। সন্তানদের স্কুলে পাঠাতে হয়। জাবোয়া অত্যন্ত জঘন্য প্রথা।

ওই এলাকায় ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়েছে এইডস। এখানে এইচআইভি সংক্রমণের হার প্রায় ১৫ শতাংশ, যা দেশের মোট হারের সংক্রমণের প্রায় দ্বিগুণ। এর জন্য প্রধানত ‘সেক্স ফর ফিশ’কে দায়ী করা হয়। যদিও এখানে জাবোয়া খুব সাধারণ ব্যাপার।

জেলে ফেলিক্স অচিয়েং (২৬) জানান, তিনি তার পিতাকে দেখে এই প্রথায় অভ্যস্ত হয়েছেন।

ফেলিক্স বলেন, ‘আমি বিবাহিত, কিন্তু সপ্তাহে আমি তিনজন ক্রেতা নারীর সঙ্গে রাত কাটাই। নারী ক্রেতারা মাছ কিনে ৫০০ কেনিয়ান শিলিং নগদ দেন এবং বাকি ৫০০ শিলিং পরিশোধ করেন সেক্সের মাধ্যমে।’

তবে এ প্রথা থেকে বেরিয়ে আসা শুরু হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের শান্তিরক্ষা বাহিনীর সহযোগিতায় স্থানীয়ভাবে পরিচালিত দাতব্য সংগঠন ভাইরিড এ কাজে সাহায্য করছে। তারা নারীদের জীবনযাত্রা পরিবর্তন করার চেষ্টা চালাচ্ছে।

তথ্যসূত্র: বিবিসি।

(97)

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry

LEAVE YOUR COMMENT

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।