fbpx

বাংলাদেশের প্রথম ভিডিও নিউজ পোর্টাল

বৃহস্পতিবার, ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯; ৩০শে কার্তিক, ১৪২৬; ১৬ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১
হোম বাণিজ্য পরিশোধিত মূলধন নিয়ে জটিলতায় নতুন ব্যাংকগুলো
পরিশোধিত মূলধন নিয়ে জটিলতায় নতুন ব্যাংকগুলো

পরিশোধিত মূলধন নিয়ে জটিলতায় নতুন ব্যাংকগুলো

29
0

৫০০ কোটি টাকা পরিশোধিত মূলধন সংগ্রহের শর্তে নতুন করে তিনটি ব্যাংকের অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। শুধু তাই নয়, ২০১৩ সালের পর থেকে অনুমোদন পাওয়া সবগুলো ব্যাংককেই তাদের পরিশোধিত মূলধন ৫০০ কোটিতে উন্নীত করতে হবে। অর্থ্যাৎ এসব ব্যাংককে নতুন করে সংগ্রহ করতে হবে অতিরিক্ত ১শ কোটি টাকা।

দেশের ব্যাংকিং খাতে অনুমোদন পাওয়া নতুন ৩টি ব্যাংক হচ্ছে, বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক,দ্য সিটিজেন ব্যাংক ও পিপলস ব্যাংক। ৫০০ কোটি টাকা পরিশোধিত মূলধন সংগ্রহ করার শর্তে এই ব্যাংক তিনটির অনুমোদন দেওয়া হয়। গত ১৭ ফেব্রুয়ারী বাংলাদেশ ব্যাংকের বোর্ড সভায় তিনটি ব্যাংকের অনুমোদন ছাড়াও বাকি ব্যাংকগুলোর বিষয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক আবু ফরাহ মো. নাছের বলেন, ‘আগের ব্যাংকগুলোর জন্য কিছুটা চাপ সৃষ্টি হলেও সার্বিকভাবে ব্যাংকিং খাতের জন্য এটা ভালো সিদ্ধান্ত। আমানতকারীদের অর্থ ঝুঁকিমুক্ত রাখতে সব ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পর্ষদ।’

জানা গেছে, ২০১৩ সালে চালু হওয়া সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স (এসবিএসি) ব্যাংকের বর্তমান পরিশোধিত মূলধন ৪৯৮ কোটি টাকা, মিডল্যান্ড ব্যাংকের ৪০০ কোটি টাকা, মেঘনা ব্যাংকের ৪৪৩ কোটি ৩০ লাখ টাকা, মধুমতি ব্যাংকের ৪৫২ কোটি টাকার ওপরে, ইউনিয়ন ব্যাংকের ৪২৮ কোটি টাকা, প্রবাসী উদ্যোক্তাদের এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের ৫৬২ কোটি টাকার বেশি, এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের ৪২৫ কোটি টাকা এবং এনআরবি ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ৪০০ কোটি টাকা।

২০১৩ সালে চালু হওয়া ব্যাংকগুলোর ক্ষেত্রে পরিশোধিত মূলধনের শর্ত ছিল ৪০০ কোটি টাকা। এখন সেটি ৫০০ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। আগামীতে পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ আরও বাড়ানো হতে পারে বলেও ধারনা করা হচ্ছে ।

(29)

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry

LEAVE YOUR COMMENT

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।