fbpx

বাংলাদেশের প্রথম ভিডিও নিউজ পোর্টাল

শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১; ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৮; ৭ই জিলক্বদ, ১৪৪২
হোম অনুসন্ধান অপরাধবার্তা টিকটক স্টার হওয়ার লোভে যেভাবে পাচার হয়েছিল কিশোরী…
টিকটক স্টার হওয়ার লোভে যেভাবে পাচার হয়েছিল কিশোরী…

টিকটক স্টার হওয়ার লোভে যেভাবে পাচার হয়েছিল কিশোরী…

0

টিকটক স্টার বানানোর কথা বলে রাজধানীর মগবাজার এলাকার এক কিশোরীকে ভারতে পাচার করে দেওয়া হয়। সেখানে ধারাবাহিক শারীরিক ও বিকৃত যৌন নির্যাতনের শিকার ওই কিশোরী কৌশলে ৭৭ দিন পর দেশে পালিয়ে আসে।

দেশে ফিরেই সে ‘ভয়ংকর’ সব তথ্য জানাল। ভুক্তভোগী ওই কিশোরী গতকাল মঙ্গলবার রাতে হাতিরঝিল থানায় মানবপাচার প্রতিরোধ আইনে একটি মামলা দায়ের করেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, মামলায় ১২ জনকে আসামি করা হয়েছে। এর মধ্যে পাঁচজন বর্তমানে দেশে অবস্থান করছেন। মামলার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল রাতে সাতক্ষীরার সীমান্তবর্তী দাবকপাড়া কালিয়ানী এলাকা থেকে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- মেহেদী হাসান বাবু, মহিউদ্দিন ও আব্দুল কাদের। তারা ভারতে প্রায় এক হাজার নারীকে পাচারে সীমান্ত পার হতে সরাসরি সহায়তা করেছেন।

পুলিশকে জিজ্ঞাসাবাদ প্রদানকালে ভুক্তভোগী ওই কিশোরী জানিয়েছে, ভারতে পাচারের পর তাকে ব্যাঙ্গালুরুর আনন্দপুর এলাকায় পর্যায়ক্রমে কয়েকটি বাসায় রাখা হয়। এ সময় ভারতে এ চক্রের দ্বারা পাচারকৃত আরও কয়েকজন বাংলাদেশি ভিকটিমকে সেখানে দেখতে পায় সে। যাদেরকে সুপার মার্কেট, সুপার শপ বা বিউটি পার্লারে ভালো বেতনে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে পাচার করা হয়েছে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. শহিদুল্লাহ বলেন, ‘ব্যাঙ্গালুরুতে পৌঁছানোর কয়েকদিন পরই ওই ভুক্তভোগী কিশোরীকে চেন্নাইয়ের অয়ো (Oyo) হোটেলে ১০ দিনের জন্য পাঠানো হয়। সেখানে অমানবিক শারীরিক ও বিকৃত যৌন নির্যাতন করা হয় তাকে। সেখানে সামান্যতম দয়া কিংবা করুণা দেখায়নি চক্রের সদস্যরা।’

ভুক্তভুগী কিশোরী বলেছে, ‘কৌশলে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাইয়ে কিংবা জোরপূর্বক বিবস্ত্র ভিডিও ধারণ করে পরিবারের সদস্য বা পরিচিতদের পাঠিয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে জিম্মি করে রাখা হয়েছিল।’ পাচারকারী চক্রের খপ্পরে পড়ার পর থেকে পালিয়ে দেশে ফেরা ওই কিশোরীর করা মামলার এজাহারে ও তদন্তে উঠে এসেছে লোমহর্ষক বর্ণনা।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে নির্যাতিত ওই তরুণীর সহায়তায় ভারতে পাচার হওয়া তিনজন দেশে পালিয়ে আসতে সক্ষম হন। যাদের একজন ভারতে পাচারের ৭৭ দিন পর দেশে ফিরেছেন। ওই কিশোরীই হাতিরঝিল থানায় মামলাটি দায়ের করেন। বাকি দুইজন ভারতফেরত ভুক্তভোগীর নাম-ঠিকানা জেনে যোগাযোগের চেষ্টা করছে পুলিশ।

মামলায় উল্লেখিত চক্রে জড়িত ১২ জনের মধ্যে পাঁচজন বাংলাদেশে অবস্থান করছে। এদের মধ্যে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যতম হোতা টিকটক হৃদয় ও এই গ্রেপ্তার তিনজন একই চক্রের সদস্য। বাকি সাতজন ভারতীয় বলে প্রাথমিকভাবে তথ্য পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে ডিসি শহিদুল্লাহ বলেন, গতকাল মঙ্গলবার রাতে সাতক্ষীরার সীমান্তবর্তী দাবকপাড়া কালিয়ানী এলাকা থেকে পাচারে জড়িত দেশীয় ওই তিন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের কাছ থেকে থেকে পাচারের কাজে ব্যবহৃত দুটি মোটরসাইকেল, একটি ডায়েরি, চারটি মোবাইল ও একটি ভারতীয় সিম কার্ড উদ্ধার করা হয়েছে।

ডিসি বলেন, গ্রেপ্তার মেহেদী হাসান বাবু পাচারের শিকার মামলার বাদী কিশোরীসহ এক হাজারের বেশি নারী পাচারে জড়িত ছিল বলে প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেছেন। ৭-৮ বছর ধরে পাচারে জড়িত মেহেদী হাসান বাবুর মোবাইল ও ডায়েরিতে টিকটক হৃদয়, সাগর, সবুজ, ডালিম ও রুবেলের ভারতীয় মোবাইল নম্বর পাওয়া গেছে।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে হাতিরঝিলের মধুবাগ ব্রিজে টিকটক হৃদয়ের সঙ্গে পরিচয় হয় ভুক্তভোগী ওই তরুণীর। কখনো টিকটক স্টার বানাতে চেয়ে, কখনো ভালো বেতনের চাকরির অফার দিয়ে ভিকটিমকে নানাভাবে প্রলুব্ধ করার চেষ্টা করেন হৃদয়। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে নারায়ণগঞ্জের অ্যাডভেঞ্চার ল্যান্ড পার্কে ৭০-৮০ জনকে নিয়ে টিকটক হ্যাংআউট করেন হৃদয়। পরে একই বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর গাজীপুরের আফরিন গার্ডেন রিসোর্টে ৭০০-৮০০ জন তরুণ-তরুণীকে নিয়ে পুল পার্টির আয়োজন করা হয়। ২০২১ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি কুষ্টিয়ায় বাউল লালন শাহ মাজারে আয়োজিত টিকটিক হ্যাংআউটে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে এই তরুণীকে চক্রের অন্যান্যদের সহায়তায় সাতক্ষীরা সীমান্ত দিয়ে ভারতে পাচার করে দেন হৃদয়।

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry

LEAVE YOUR COMMENT

Your email address will not be published. Required fields are marked *